চীনের কাছে ১৩০০০ কোটি পাউন্ড ক্ষতিপূরণ চেয়েছে জার্মানি

চীনের কাছে ১৩০০০ কোটি পাউন্ড ক্ষতিপূরণ চেয়েছে জার্মানি

আজকাল অনলাইন:   করোনা ভাইরাসের কারণে চীনের কাছে ১৩০০০ কোটি পাউন্ডের ক্ষতিপূরণ চেয়েছে জার্মানি। করোনা মহামারির জন্য বেইজিংকে দায়ী করে এমন দাবি জানিয়েছে চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মারকেলের দেশ। একই কারণে এরই মধ্যে চীনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ফ্রান্স, বৃটেন ও যুক্তরাষ্ট্র। তার সঙ্গে যোগ দিলো জার্মানি। তাদের দাবি, চীনের উহান থেকেই করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি এবং বিষয়টিকে চীন ধামাচাপা দিয়ে রাখতে চেয়েছিল। এ ছাড়া তারা করোনায় মৃতের সংখ্যাকে অনেক কম করে দেখিয়েছে। এরই মধ্যে উহানের একটি ল্যাবরেটরি থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে- এমনটা বিশ^াস নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো তদন্ত শুরু করেছে। প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প ঘটনার সত্যতা পেলে চীনকে কঠোর পরিণতি ভোগ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।
লন্ডনের অনলাইন এক্সপ্রেস লিখেছে, শনিবার ট্রাম্প চীনের প্রতি এমন হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, করোনা মহামারি ছড়িয়ে দেয়ার বিষয়ে যদি চীনকে ‘ইচ্ছাকৃতভাবে দায়ী’ পাওয়া যায় তাহলে তাদেরকে কঠোর পরিণতির মুখে পড়তে হবে। তিনি আরো বলেছেন, এই ভাইরাসকে ছড়িয়ে পড়ার আগেই চীনে তার বিস্তার বন্ধ করা যেতো। কিন্তু তা করা হয় নি। এর জন্য সারাবিশ^ দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। যদি এক্ষেত্রে ভুল হয়ে থাকে, ভুল তো ভুলই। কিন্তু তারা যদি ইচ্ছাকৃতভাবে এটা করে থাকে তাহলে তাদেরকে পরিণতি ভোগ করতে হবে। এ বিষয়ে বিব্রতকর অবস্থায় আছে চীন। এখন প্রশ্ন হলো, এই ভাইরাস ছড়িয়েছে ভুলবশত কিনা, যা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। অথবা তারা কি এই ভাইরাসকে ইচ্ছাকৃতভাবে ছড়িয়ে দিয়েছে কিনা?
স্বচ্ছতার অভাব থাকার জন্য চীনকে বার বার আক্রমণ করে বক্তব্য দিচ্ছেন ট্রাম্প ও তার সিনিয়র সহযোগীরা। যে উহান শহর থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়েছিল এ সপ্তাহে সেখানে নতুন করে ভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ওদিকে উহানের একটি পশুর মার্কেট থেকে নয় বরং ভাইরাস নিয়ে গবেষণাকারী একটি ল্যাবরেটরি থেকে করোনা ভাইরাসের বিস্তার বলে যুক্তরাষ্ট্র যে দাবি করেছে তার সঙ্গে যোগ দিয়েছে বৃটেনও। যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা কর্মকর্তারা এ বিষয়ে অনুসন্ধান করছেন। তার সঙ্গে এ সপ্তাহে জার্মানির সর্ববৃহৎ প্রচারিত ট্যাবলয়েড পত্রিকা ‘বিল্ড’ একটি বোমা ফাটিয়েছে। তারা যুক্তরাষ্ট্র ও বৃটেনের ক্ষোভের আগুনের সঙ্গে যোগ দিয়েছে। বলা হয়েছে, চীনের কাছে ১৩০০০ কোটি পাউন্ড ক্ষতিপূরণ চেয়ে ইনভয়েস পাঠিয়েছে জার্মানি।