যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বিজ্ঞানীদের নতুন সংগঠন

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বিজ্ঞানীদের নতুন সংগঠন

ওয়াশিংটন ডিসি প্রতিনিধি: বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত অণুজীব বিজ্ঞানীদের একই প্ল্যাটফর্মে একত্রিত করে তাদের কর্ম দক্ষতাকে আরো শক্তিশালী করার লক্ষ্যে ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি অব বাংলাদেশ অ্যাফিলিয়েটেড মাইক্রোবায়োলোজস্টিস-আইএসবিএম নামের আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে একটি নতুন সংগঠনের সূচনা করেছে উত্তর আমেরিকার একদল অভিজ্ঞ অণুজীব বিজ্ঞানী। 
যুক্তরাষ্ট্রের ম্যারিল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আনোয়ার হককে আহ্বায়ক এবং জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবপ্রযুক্তি বিষয়ের শিক্ষক এবং পরিবশে নিয়ন্ত্রক সংস্থায় অণুজীব বিজ্ঞানী হিসেবে কর্মরত ড. মিজানুর রহমানকে সদস্য সচিব করে এগারো সদস্যের একটি আহ্বায়ক কমিটি এবং পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি উপদেষ্টা পরিষদ গঠন করা হয়েছে।
জবাবদিহিতি, সহযোগিতা, গুণগতমান, একে অপররে প্রতি সম্মান এবং স্বচ্ছতা- এই পাঁচ মূল ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত হয়েছে নবগঠিত এই সংগঠন। আইএসবিএম মাইক্রোবায়োলজি পেশাজীবীদের একটি স্বেচ্ছাসেবী, অলাভজনক এবং অরাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে থাকা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত অণুজীব বিজ্ঞানীদের সমন্বয়ে পরিচালিত হবে বলে জানিয়েছেন সংগঠনের নেতারা।
সংগঠনের সদস্য সচিব ড. মিজানুর রহমান জানান, বিদ্যমান এই করোনা-ক্রান্তিলগ্নে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণকারী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এসব অণুজীব বিজ্ঞানীরা জিনোম সিকোয়েন্সে দক্ষতা প্রদর্শনের পাশাপাশি ভাইরাস শনাক্তকারী বিভিন্ন রিএজেন্ট, এন্টি-ভাইরাল ওষুধ, ভ্যাকসিন আবিষ্কারসহ জীবপ্রযুক্তি বিষয়ের অন্যান্য শাখাতেও অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন, যার সুফল অচিরেই দেখা যাবে। 
তিনি জানান, অণুজীব বিজ্ঞান বিষয়ক ট্রেনিং, মনিটরিং, পেশাগত তথ্য বিনিময় এবং সর্বোপরি বিশ্বের এই ক্রান্তিলগ্নে অণুজীব বিজ্ঞানের ভূমিকাকে আরো শাক্তিশালী করাই এই সংগঠনরে মূল উদ্দশ্যে। আইএসবিএম আমেরিকান সোসাইটি ফর মাইক্রোবায়োলজিসহ (এএসএম) এর অন্যান্য মাইক্রোবায়োলজি ভিত্তিক সংগঠনগুলোর সঙ্গে নিবিড়ভাবে সহযোগিতামূলক কাজ করতে চায়। পাশাপাশি এই সংগঠনের মাধ্যমে বাংলাদেশ বংশোদ্ভূত অণুজীব বিজ্ঞানীদের মধ্যে এক দৃঢ় বন্ধন স্থাপিত হবে বলে সংগঠনরে সদস্যরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন।
সদস্য সচিব আরো জানান, গত শনিবার বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা একশ পঞ্চাশ জন অনুজীব বিজ্ঞানী বাংলাদেশে জনস্বাস্থ্যের উন্নয়ন ও করোনা প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় অবদান রাখার বিষয়ে আরো ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করার উপায় নিয়ে আলোচনা করেছেন।
উল্লেখ্য, বিশ্বব্যাপী তিন হাজারেরও বেশি বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত অনুজীব বিজ্ঞানী এই সংগঠনের সঙ্গে জড়িত, যারা করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে তাদের মতামত প্রকাশ অব্যাহত রেখেছেন। 
কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- ড. ফখরুল মনোয়ার হোসেন, ড. হাবিব বখত, ড. ফেরদৌস হাসান, ড. নুর এ হাসান, মিসেস ফাহমিনা জাহান, ড. হোসনে আজম, মো. বেলাল হোসনে, ড. নিয়াজ রহিম, এবং মিসেস সৈয়দা অন্তরা শবনম। উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যরা হল- ড. জাফরুল হাসান, ড. আফজাল চৌধুরী, ড. শেখ সেলিম, অধ্যাপক সেলিনা পারভিন এবং অধ্যাপক মো. মোতালেব। সংগঠনের সদস্যরা উত্তর আমেরিকার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি এবং বেসরকারি সংস্থার গুরুত্বপূর্ণ পদে র্কমরত রয়েছেন